প্রধানমন্ত্রীকে সোফিয়া আপনি বঙ্গবন্ধুর মেয়ে নাতনির নাম সোফিয়া

sofia robat 1

হ্যালো সোফিয়া, কেমন আছ?
-ধন্যবাদ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী। আমি ভালো আছি। আমি গর্বিত। আপনার সঙ্গে সাক্ষাৎ হওয়া দারম্নণ ব্যাপার।

এই কথোপকথন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে আলোচিত রোবট সোফিয়ার। তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি (আইসিটি) বিষয়ক মেগা ইভেন্ট ‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড-২০১৭’-এর এবারের আয়োজনের বড় আকর্ষণ এই যন্ত্রমানবী।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বুধবার সকালে বঙ্গবন্ধু আন্ত্মর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আনুষ্ঠানিকভাবে ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডের উদ্বোধন করেন। বক্তৃতা পর্ব শেষে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ও রোবোটিক্সের সমন্বয়ে গড়া রোবট সোফিয়ার সঙ্গে কথোপকথনের মাধ্যমে ট্যাব চেপে তিনি মেলার উদ্বোধন করেন।
পরের প্রশ্নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সৌদি আরব থেকে আসা সোফিয়ার কাছে জানতে চান, ‘তুমি আমাকে কীভাবে চিনলে?’ জবাবে বিশ্বের প্রথম নাগরিকত্ব পাওয়া এই রোবট বলে, ‘আমি জানি, আপনি বাংলাদেশের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মেয়ে। আপনি মাদার অব হিউম্যানিটি। আপনার নাতনির নামও সোফিয়া।’ প্রধানমন্ত্রী তখন উপস্থিত সবার উদ্দেশে বলেন, ‘আপনারা জানেন, জয়ের (প্রধানমন্ত্রীর ছেলে এবং তার তথ্যপ্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়) মেয়ের নাম সোফিয়া।’ হলুদ-সাদা রঙের জামদানির পোশাক পরা সোফিয়ার সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর ইংরেজিতে কথোপকথন চলে।
যার আদলে সোফিয়াকে বানানো হয়েছে সেই বিখ্যাত হলিউড অভিনেত্রী অড্রে হেপবার্নও বাংলাদেশে এসেছিলেন। ১৯৮৯ সালে ইউনিসেফের শুভেচ্ছা দূত হয়ে বাংলাদেশে এসে প্রায় এক সপ্তাহ ছিলেন।
আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও আইসিটি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান ইমরান আহমেদ এবং বাংলাদেশ সফটওয়্যার ইনফরমেশন সার্ভিসেসের (বেসিস) সভাপতি ও বিজয় সফটওয়্যারের প্রবক্তা মোস্ত্মাফা জব্বার। আইসিটি মন্ত্রণালয়ের সচিব সুবীর কিশোর চৌধুরী অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তৃতা করেন। মন্ত্রী, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা, সরকারের পদস্থ বেসামরিক ও সামরিক কর্মকর্তা, বিভিন্ন দেশের কূটনীতিক, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, কম্পিউটার খাতের সঙ্গে সংশিস্নষ্ট ব্যক্তিরা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
কয়েকটি আইটি সংগঠনের সহযোগিতায় আইসিটি বিভাগ ও বেসিস ‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড-২০১৭’-এর আয়োজন করেছে। চার দিনব্যাপী এই আয়োজনের প্রতিপাদ্য হচ্ছে ‘রেডি ফর টুমরো’। ৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত্ম মেলা সকাল ১০টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত্ম চলবে। ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড দেখতে কোনো টিকিট লাগবে না, তবে ওয়েবসাইটে নিবন্ধন করতে হবে। মেলা প্রাঙ্গণেও নিবন্ধন করার সুযোগ থাকছে।

৫০ ধরনের ভাবভঙ্গি পারে সোফিয়া
সাম্প্রতিক সময়ের আলোচিত নারী রোবট সোফিয়া। সবার কথা শুনে, সব বোঝে, প্রশ্ন করলে আবার উত্তরও দেয়। আবার পাল্টা প্রশ্ন করে সে। ৫০ ধরনের ফেসিয়াল এক্সপ্রেসন (ভাবভঙ্গি) রয়েছে তার। এসবের মূলে সোফিয়ার আর্টিফিশিয়াল ইন্টিলিজেন্স (এআই) সফটওয়্যার।
২০১৫ সালের ১৯ এপ্রিল সোফিয়াকে অ্যাক্টিভেট (সচল) করে হংকংয়ের ‘হ্যান্সন রোবোটিক্স’ নামের একটি প্রতিষ্ঠান। তবে চলতি বছরের অক্টোবরে সৌদি আরবের রিয়াদে ফিউচার ইনভেস্টমেন্ট সামিটে অংশগ্রহণকারীদের নানা প্রশ্নের উত্তর দিয়ে চমকে দেয় সোফিয়া। এরপর তাকে সৌদি আরবের নাগরিকত্ব দেয়া হয়।
হরোবট সোফিয়া যে কোনো প্রশ্নের উত্তর দিতে পারে। ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্কের মাধ্যমে বিশাল তথ্যভা-ারে যুক্ত থাকে সে। এছাড়া মানুষের সঙ্গী ও সহযোগী হিসেবেও কাজ করতে পারে সোফিয়া।
হসোফিয়াকে তৈরি করা প্রতিষ্ঠান জানায়, তার ভেতর এমন একটি সফটওয়ার দেয়া হয়েছে যাতে সে কোনো প্রশ্ন শুনলেই কিছুক্ষণের মধ্যে উত্তর দিতে পারে। যেমন কোনো অঞ্চলের আবহাওয়া, যানজট পরিস্থিতি কিংবা সাধারণ জ্ঞানের প্রশ্ন। প্রশ্ন শুনে সে নানা ধরনের ভঙ্গিতে উত্তর দেয়। তার মোট ৫০টি ফেসিয়াল এক্সপ্রেসন রয়েছে।
এছাড়াও তার দেহে ক্যামেরা ও আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (এআই) সফটওয়্যার লাগানো রয়েছে। এর মাধ্যমে সে যার সঙ্গে কথা বলেছে তাকে পরবর্তীবার চিনতে পারে। যে তার সঙ্গে কথা বলে সোফিয়া স্বয়ংক্রিয়ভাবে তার সঙ্গে আই কন্টাক্ট করতে পারে।
হাসি-ঠাট্টার পাশাপাশি রাগও দেখায় সোফিয়া। দুই পাটির দাঁত একসঙ্গে করে রাগ দেখায় আবার কষ্ট পেলে ভ্রু কুঁচকে ফেলে।
হসৌদি আরবে ফিউচার ইনভেস্টমেন্ট সামিটে তাকে করা প্রশ্নের জবাবে মুগ্ধ হয়ে সৌদি আরবের নাগরিকত্ব দেয়া হয়। এ নিয়ে সৌদিজুড়ে শুরম্ন হয় নানা বিতর্ক। এ রোবট একজন সৌদি নারীর চেয়েও বেশি অধিকার ভোগ করছে কি-না সেটা নিয়ে নানা আলোচনা-সমালোচনা চলতে থাকে। রোবট সোফিয়ার ছবি এরপর সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যাপকভাবে শেয়ার হয়।

তাক লাগিয়েছিল সোফিয়া
সোফিয়াকে মানুষের মতো করে সাক্ষাৎকার নেন উপস্থাপক। সিএনবিসির একটি সাক্ষাৎকারে যখন প্রশ্নকারী রোবটের ব্যবহার সম্পর্কে উদ্বেগ প্রকাশ করেন তখন সোফিয়া কৌতূক করে যে ‘সে (প্রশ্নকারী) খুব বেশি এলন মাস্ক পড়ছে এবং হলিউড চলচ্চিত্র দেখছে।’
একজন তাকে জিজ্ঞেস করেছিল তুমি কি মানুষকে ধ্বংস করবে? উত্তরে সোফিয়া বলে, ‘আমি মানবজাতির সঙ্গে শান্ত্মিপূর্ণভাবে বসবাস করতে চাই।’
প্রশ্ন রাখা হয়েছিল সে খুশি কি-না? উত্তরে সোফিয়া হেসে বলে, ‘আমি সবসময় স্মার্ট ও সমৃদ্ধ মানুষের মধ্যে থাকতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করি।’

Authors
  
Top