মেয়র প্রার্থী হচ্ছেন শাফিন আহমেদ

safin 1

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে প্রার্থী হচ্ছেন ব্যান্ড শিল্পী শাফিন আহমেদ।
মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে ববি হাজ্জাজের দল জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলনের (এনডিএম) পক্ষ থেকে শাফিনকে প্রার্থী হিসেবে সমর্থন দেয়া হয়।

সংগীতশিল্পী ফিরোজা বেগম ও সুরকার কমল দাশগুপ্তের ছেলে শাফিন আহমেদ অনিবন্ধিত দল এনডিএমের উচ্চ পরিষদের সদস্য।
এই দলের চেয়ারম্যান ববি হাজ্জাজ বিতর্কিত ব্যবসায়ী মুসা বিন শমসেরের ছেলে এবং জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদের সাবেক মুখপাত্র।
সংবাদ সম্মেলনে ববি হাজ্জাজের পাশে বসা শাফিন কোনো কথা বলেননি। লিখিত বক্তব্যে ববি দলের পক্ষ থেকে প্রার্থী হিসেবে শাফিনকে সমর্থন দেয়ার কথা বলেন।
তিনি বলেন, আমরা এক ব্যক্তি, এক পরিবারকে ক্ষমতায় রাখার রাজনীতি চাই না। ক্ষমতা দখলের নির্লজ্জ লড়াই, এক ব্যক্তির কাছে ক্ষমতা কুক্ষিগত রাখার পারিবারিক রাজনীতি চাই না। আমরা জনগণের প্রতিষ্ঠিত প্রতিনিধিত্বশীল সরকার দেখতে চাই।
ববি হাজ্জাজ জানান, রাজনৈতিক দল হিসেবে নিবন্ধন পাওয়ার জন্য গত ৩০ অক্টোবর নির্বাচন কমিশনে আবেদন করেছেন তারা। এখনো

নিবন্ধন না পাওয়ায় দলের প্রার্থী হিসেবে নয়, শাফিন আহমেদকে তারা দলীয় সমর্থন দিচ্ছেন।
তিনি ঢাকাবাসীর প্রত্যাশা পূরণে সক্ষম হবেন। এ জন্যই তাকে সমর্থন দেয়া হয়েছে। আমরা বিশ্বাস করি, ঢাকা উত্তরের ভোটাররা শাফিন আহমেদকে পছন্দ করবেন। সেই বিশ্বাস আমাদের আছে। আমরা আশাবাদী।
ববি হাজ্জাজ ২০১২ সালে জাতীয় পার্টির সমর্থনে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে প্রার্থিতার আবেদন জানিয়ে প্রচারে নামলেও শেষ মুহূর্তে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেন।
চলতি বছর এপ্রিলে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে অনুষ্ঠান করে তিনি জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলন (এনডিএম) গঠনের ঘোষণা দেন। তখন থেকেই এই দলের সঙ্গে রয়েছেন আশি ও নব্বই দশকের জনপ্রিয় ব্যান্ড মাইলসের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য শাফিন।
সংবাদ সম্মেলনে তিনি কোনো কথা না বললেও পরে টেলিফোনে গিস্নটজ প্রতিবেদক সাইমমু সাদের সঙ্গে তার কথা হয়।
শাফিন বলেন, ‘পার্টির প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাতে চাই। আমার মনোনয়নের পেছনে পার্টির সমর্থন থাকবে। পার্টি যদি আমাকে বড় দায়িত্ব দেয়ার কথা চিন্ত্মা করে, তাহলে সেটা আমি নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করার চেষ্টা করব।’
এনডিএম এর নিবন্ধন নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এনডিএম নির্বাচনমুখী দল। সুতরাং, নির্বাচনকে সবসময় উৎসাহের সঙ্গেই মেনে নেব। সেখানে পার্টিসিপেট করব। নিবন্ধনের সব নিয়ম-কানুন মেনে কাগজপত্র জমা দিয়েছি। আমরা অত্যন্ত্ম আশাবাদী।
পার্টির প্রস্তুতি যেভাবে এগোচ্ছে, এতে আগামী সংসদ নির্বাচনেও ‘বড় ধরনের চমক’ দেখানোর আশার কথা বলেন এই সংগীতশিল্পী।
গানের জগৎ থেকে রাজনীতিতে কেন?
শাফিন বলেন, ‘সাংস্কৃতিক অঙ্গনে যে পরিচিতি আর ভালোবাসা পেয়েছি, সেটা অবিশ্বাস্য। দেশের মানুষের জন্য কিছু করার ইচ্ছা সবসময়ই ছিল। সঠিক সুযোগ ও সময়ের অপেক্ষায় ছিলাম। সেই সময় ও সুযোগটা তৈরি করে নিতে পেরেছি।’
জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলনের রাজনৈতিক আদর্শ কী- এ প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের জাতীয়তাবাদী চেতনা, ধর্মীয় মূল্যবোধ, জবাবদিহিমূলক গণতন্ত্র, স্বাধীনতার চেতনা- এগুলোকে ভিত্তি ধরেই আমরা এগোচ্ছি।’
নতুন দলের নিবন্ধনের বিষয়ে জানতে চাইলে নির্বাচন কমিশনের ভারপ্রাপ্ত সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, আগামী ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত্ম তারা নতুন দলের আবেদন নেবেন। নিবন্ধন প্রক্রিয়া শেষ করতে মার্চ পর্যন্ত্ম সময় লেগে যাবে।
ফলে ফেব্রম্নয়ারির শেষ ভাগে অনুষ্ঠেয় ঢাকা উত্তরের মেয়র পদে উপ-নির্বাচনে নতুন কোনো দলের প্রতীকে প্রার্থী হওয়ার সুযোগ থাকছে না। শাফিনের মতো কেউ প্রার্থী হতে চাইলে তাকে স্বতন্ত্র হিসেবেই মনোনয়নপত্র জমা দিতে হবে।

Authors
Top